যৌতুক না দেয়ায় প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী হামলাঃ আহত দুই

প্রকাশিত: ৪:০৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৫, ২০২৪

যৌতুক না দেয়ায় প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী হামলাঃ আহত দুই

কুমিল্লার জেলার লাকসাম উপজেলার সালেপুর গ্রামে যৌতুক না দেয়াকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে এক চায়ের দোকানদারকে হামলা চালিয়ে ২ ব্যাক্তিকে রক্তাক্ত জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এসময় উক্ত চায়ের দোকানে একই গ্রামের খন্দকার হেলাল মাইজভান্ডারি(৬৫) এর উপর সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। এই হামলায় দোকানী ফারুক ভান্ডারী ও হেলাল ভান্ডারী রক্তাক্ত জখম হয়। আহতদেরকে মুমূর্ষু অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে লাকসাম সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে।

সূত্রে জানা যায়- উপজেলার কান্দির পাড় ইউনিয়নের সালেপুর গ্রামের চায়ের দোকানী ফারুক ভান্ডারীর মেয়েকে পাশের গ্রাম কাগৈয়া তে রিদয় এর সাথে বিয়ে দেয়া হয়। তাদের একটি পুত্র সন্তান ও আছে।
জানা যায় গোলাপ হোসেন মন্দার এর ছেলে রিদয় হাসান একজন মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যাবসায়ী। বেশ কিছু দিন ধরে রিদয় ও তার পরিবার যৌতুকের টাকার জন্য তার স্ত্রী কে শারিরীক ও মানুষীক ভাবে নির্যাতন করে আসছে।
ফারুক ভান্ডারী এর মধ্যে দেড় লক্ষ্য টাকা জামাতা রিদয় কে দেন। পুনরায় টাকা দাবি করলে ফারুক ভান্ডারী টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে রিদয় শশুর ফারুক ভান্ডারীকে মারধর করে।
পরে তার মেয়েকে ফারুক ভান্ডারীর বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় টাকা আনার জন্য।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সালেপুর গ্রামের কিছু মাদক সেবি রিদয়ের সাথে যুক্ত হয়ে এই সন্ত্রাসী হামলার ও ফারুক ভান্ডারীর মেয়ে কে অপহরণের পরিকল্পনা করে।
ভুক্তভোগী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে কথা বলে জানা যায় গত ২০/৪/২৪ রোজ শনিবার রাত আনুমানিক ১০ ঘটিকায় ৩ টি মোটর সাইকেল ও একটি সিএন জি নিয়ে পাশের গ্রাম কাকইয়া থেকে ১০/ ১২ জন সন্ত্রাসী দ্রুত গতিতে দোকানের সামনে অবস্থান করে এ সময় সালেপুর গ্রামের কয়েকজন সন্ত্রাসী দের সহযোগিতা করে হামলা ও লুটপাট চালায় পাশাপাশি দোকানী ফারুক ভান্ডারীর মেয়ে ১৪ কে অপহরণ করে সি এন জি তে তুলার চেস্টা করে খন্দকার হেলাল মাইজভান্ডারি তাদের পথ গতিরোধ করে মেয়েটিকে উদ্ধার করার চেস্টা করলে তাকে ধারালো অস্ত্রে দিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে তাদের চিৎকারে লোকজন ছুটে আসলে তারা পালিয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসীর অনেকের মতে এই হামলার পেছনে সালেপুর গ্রামের কিছু মাদকাসক্তের হাত রয়েছে। তাদের ভাষ্যমতে আমির হোসেনের (চিয়া) ছেলে শাকিল
দেশিয় অস্ত্র নিয়ে খন্দকার হেলাল মাইজভান্ডারির উপর হামলা চালায় ও তার কাছে থাকা টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। সেই সুত্র ধরে এলাকাবাসী আমির হোসেনের বাড়িতে যেতে চাইলে কয়েকজন সন্ত্রাসী দের পক্ষ নিয়ে তাদের বাধা ও ভয় ভীতি প্রদর্শন করে। তারা পাড়া ভাগ করে পুনরায় হামলার হুমকি দেয়।

এই ঘটনায় লাকসাম থানায় ২ টি মামলা দায়ের করা হয়। মামলার সুত্র ধরে এক সন্ত্রাসী শাকিল্কে গ্রেফতার করেছেন লাকসাম থানা পুলিশ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ